উত্তর প্রদেশের হাপুর জে’লার চামরি গ্রামে। নুন আনতে পান্তা ফুরোয় দশা।শামিম এবং খইরু নিশা নামে ওই বৃ’দ্ধ দম্পতির এক চিলতে বাড়িতে রয়েছে মাত্র একটি পাখা এবং একটি লাইট। অথচ তাঁদের এক মাসের বিদ্যুতের বিল এসেছে ১২৮ কোটি টাকার, যা প্রায় একটা গোটা শহরের বিলের সমান। তা দেখে মাথায় হাত ভারতেরউত্তরপ্রদেশের একটি পরিবারের।

রাজধানী দিল্লি থেকে ৮০ কিলোমিটার দূরে, উত্তরপ্রদেশের হাপুর জে’লার চামরি গ্রামে ঘ’টনাটি ঘটেছে। সপরিবারে সেখানে বাস শামিম নামের এক ব্যক্তির। অনেক ক’ষ্টে বাড়িতে বিদ্যুৎ সংযোগ পেয়েছিলেন। তাতেই এই পরিণতি।

ভারতের সংবাদ সংস্থা এএনআই-কে দেয়া সাক্ষাৎকারে শামিম জানিয়েছেন, তাঁদের বাড়িতে ২ কিলোওয়াটের বিদ্যুৎ সংযোগ রয়েছে। আলো-পাখা মিলিয়ে প্রতি মাসে ৭০০ টাকার মতো বিল আসে। কিন্তু সম্প্রতি বিল হাতে পেয়ে চোখ কপালে ওঠে তাঁর। তাতে ১২৮ কোটি ৪৫ লক্ষ ৯৫ হাজার ৪৪৪ টাকা মেটাতে বলা হয়। শামিমের দাবি, প্রথমে কিছুই বুঝে উঠতে পারেননি তিনি। সম্বিৎ ফিরলে ছুটে যান বিদ্যুৎ দফতরে। হিসাবে কোথাও ভু’ল হয়েছে বলে জানান। কিন্তু তাঁর কথা কানে তোলেননি কেউ। ওই টাকা মেটানোর সামর্থ্য ছিল না তাঁর। তাই টাকা জমা দেওয়ার নির্ধারিত দিন পেরিয়ে গেলে বিদ্যুৎ সংযোগ কে’টে দেওয়া হয়।

শামিম বলেন, “কেউ আমাদের কথা শুনছে না। এত টাকা কী করে দিই বলুন তো? শুধু আলো-পাখা ব্যবহার করি আমরা। তাতে এত বিল হয় কী করে? মনে হচ্ছে, গোটা হাপুরের বিলই পাঠিয়ে দিয়েছে। অভিযোগ জানাতে গিয়েছিলাম। কিন্তু বিল না মেটালে বিদ্যুৎ সংযোগ চালু হবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে বিদ্যুত্ দফতর।’’

বি’ষয়টি নিয়ে স্থানীয় বিদ্যুৎ দফতরে যোগাযোগ করা হলে, তাদের ইঞ্জিনিয়ার রাম শরণ বলেন, “সম্ভবত প্রযুক্তিগত ভু’ল হয়েছে। এটা এমন কিছু বড় ব্যাপার নয়। আকছার হয়েই থাকে। বিলটি হাতে পেলে, সবকিছু খতিয়ে দেখব আমরা। ভু’ল হয়ে থাকলে, তা সংশোধ’ন করে নতুন বিল দেওয়া হবে ওই পরিবারকে।”

এর আগে, চলতি বছর জানুয়ারি মাসে একই পরিস্থিতির মুখোমুখি হয়েছিলেন কনৌজের বাসিন্দা আবদুল বসিত। বাড়িতে ২ কিলোওয়াটের বিদ্যুৎ সংযোগ থাকা সত্ত্বেও তাঁকে ২৩ কোটির বিল ধরানো হয়। আট লক্ষ ৬৪ হাজার টাকার বিদ্যুৎ বিল পেয়ে গত বছর মে মাসে আত্মহ’ত্যা করেছিলেন মহারাষ্ট্রের অওরঙ্গাবাদের এক সবজি বিক্রেতা। সেই ঘ’টনায় গাফিতলিত অভিযোগে বিদ্যুৎ দফতরের অ্যাকাউন্ট অ্যাসিস্ট্যান্টকে সাসপেন্ড করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here