বগুড়ার শেরপুরে মহিপুর এলাকার গভীর রাত্রিতে বন্ধুর স্ত্রী লাবনী আক্তারকে শ্লীলতাহানীর চেষ্টায় রুবেল হোসেন (২৯), মো. শিলু (৩০), মো. ওবায়দুর রহমান (৩২) নামের তিন যুবককে আ’টক করে শেরপুর থানা।

শনিবার (৫ ডিসেম্বর) দুপুরে ভুক্তোভোগী লাবনী আক্তার নিজে বা’দী হয়ে শেরপুর থানায় মা’মলা করে। এবং আ’সামিদের বিকেল সাড়ে ৩টায় জে’ল হাজতে প্রেরণ করেছে।

মা’মলা সুত্রে জানা যায়, গত শুক্রবার ৪ ডিসেম্বর সন্ধ্যা ৭টায় লাবনী আক্তার গাজীপুর সাইনবোর্ড এলাকাস্থ আমার মামা মো. রজিবুল ইসলাম এর বাসা থেকে মামার সাথে বাহির হইয়া সন্ধ্যা সাড়ে ৭ ঢাকা-বগুড়াগামী একতা কোচ যোগে শেরপুর থানাধীন মহিপুরস্থ নিজ বাড়ীর উদ্দেশ্যে রওনা করে।

রাত্রি পৌনে ১২টায় মহিপুর স্ট্যান্ডে নামিয়া নিজ বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা হইলে মিন্টু মিয়ার মনোহারীর দোকানের সামনে ইট পাতা রাস্তায় পৌঁছামাত্র মহিপুর বাজর এলাকার আব্দুস সামাদের ছেলে ও লাবনীর স্বা’মীর বন্ধু রুবেল হোসেন,

মহিপুর কলোনী এলাকর হাফিজারের ছেলে শিলু, মহিপুর বাজার এলাকার মৃ’ত সিফার উদ্দিনের ছেলে ওবায়দুর রহমান প্রায় ২ ঘন্টা সেখানে অ’বরুদ্ধ করিয়া রেখে বিভিন্নভাবে হয়রানী করিতে থাকে।

এবং বিভিন্ন ধরনের ভ’য়ভীতি হু’মকি প্রদর্শন করে। এ সময় লাবনীর মা ছালেহা বেগম মে’য়ে লাবনীকে নিতে আসলে অ’বরুদ্ধ দেখিয়া পু’লিশকে সংবাদ দেয়। পু’লিশ সংবাদ পেয়ে ঘ’টনাস্থল থেকে তাকে উ’দ্ধার করে তাহাদেরকে আ’টক করে।

এ বি’ষয়ে শেরপুর থানা অফিসার ই’নচার্জ মো: শহিদুল ইসলাম জানান, এ ঘ’টনায় মে’য়ে নিজে বা’দী হয়ে মা’মলা করেছে মা’মলা নং-১২। এবং আ’সামিদের জে’ল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here