সভ্যতার অগ্রগতির সাথে সাথে ধীরে ধীরে প্রযুক্তিগত উন্নতি ঘটছে, গতিময় হচ্ছে পৃথিবী। এমন এমন নিত্যনতুন ভাবনার সাথে পরিচয় ঘটছে যা কল্পনাতীত। আর এই প্রযুক্তির উন্নতির সাথে আরো সহজ হয়ে উঠছে জীবনযাত্রা।

প্রযুক্তি যে শুধু বিলাসবহুল মানুষের জীবনে পরিবর্তন আনছে তা নয়, সাধারন মানুষের কাছে যে স্বপ্ন অধ’রা ছিল নিত্যনতুন প্রযুক্তির ফলে তাও পূরন হচ্ছে।

যারা এতদিন পেট্রোলের দামের কথা ভেবে বাইক কিনতে পিছিয়ে আসছিলেন এবার তাদের জন্য রয়েছে দুর্দান্ত এক খবর। সম্প্রতি এক দ্রু’তগতির বাইক বাজারে এসেছে যা কিনতে গেলে একফোঁটাও চিন্তা করতে হবে না।

কারণ এই বাইক পেট্রোল নয় চলবে হাওয়াতে। শুনতে অবাক লাগলেও এমনই এক অসাধ্য সাধ’ন করেছে লখনউয়ের এক বিজ্ঞানী। ইতিমধ্যে এটি পরীক্ষায় সফলও হয়েছে।

লখনউ এর এই বিজ্ঞানী বহু বছর আগে থেকেই এই আবি’ষ্কারে ব্রতী হয়েছিলেন। প্রায় ৯ বছর আগে এই এয়ার ইঞ্জিন আবি’ষ্কার করেছিলেন তিনি। এই ইঞ্জিন এর খরচও বেশ কম বলে জানা গেছে।

অ্যালুমিনিয়াম সিলিন্ডার বানিয়ে এয়ার-ও-বাইকে তা লাগানো হয়েছে। টু হুইলারের এতে পাঁচ টাকার হওয়াতেই 40 কিলোমিটার পর্যন্ত যাওয়া যাব’ে বলে দাবি করা হয়েছে। এই এয়ার ও বাইক ঘন্টায় 70 থেকে 80 কিলোমিটার বেগে চলতে পারে।

এই নয়া এয়ার-ও-বাইক নির্মানের পিছনে ভারত রাজ সিং গু’রুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন। বর্তমানে তিনি এক ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের আসোসিয়েট ডিরেক্টর পদে রয়েছেন। ভারত রাজ সিং তাঁর এই আবি’ষ্কারের অনুমোদনের জন্য স’রকারের কাছে প্রস্তাবও পাঠিয়েছেন।

শুধুই যে সাধারণ মানুষের পকে’টের সাশ্রয় হবে তা নয় এয়ার ও বাইক প্রস্তুতকারকদের ধারনা এই বাইক বাজারে এলে জ্বা’লানি যেমন বাচবে তেমনি গ্লোবাল ওয়ার্মিঙ এর সমস্যা কমবে। তার মতে এই আবি’ষ্কার বাজারে এলে পঞ্চাশ শতাংশ দূষণ ও কমে যাব’ে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here