দিনাজপুরের বীরগঞ্জে ৫ বছর প্রেমের সম্প’র্ক ছিন্ন করায় প্রে’মিকাকে কু’পিয়ে হ’ত্যার পর পেট্রোল দিয়ে তার লা’শ পু’ড়িয়ে দেয়। এ ঘ’টনায় অ’ভিযুক্ত প্রে’মিক মাহফুজ আলম ওরফে মানিককে (৩৫) যাবজ্জীবন সশ্রম কা’রাদ’ণ্ড দিয়েছেন আ’দালত।

বিচারক একইস’ঙ্গে আ’সামিকে ২০ হাজার জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছরের বিনাশ্রম কা’রাদ’ণ্ডের রায় প্রদান করেন।

রোববার বিকেল সাড়ে ৪টায় দিনাজপুরের সিনিয়র জে’লা ও দায়রা জজ আজিজ আহম’দ ভুঞা আসামীর উপস্থিতিতে এই রায় ঘোষণা করেন।

মাহফুজ আলম মানিক দিনাজপুর জে’লার বীরগঞ্জ উপজে’লার চাকাই গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে।

মা’মলা সূত্রে জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে মানিকের স’ঙ্গে একই উপজে’লার শীতলাই চৌধুরীপাড়া গ্রামের আব্দুল মালেকের মে’য়ে রোমানা আক্তার মৌর প্রেমের সম্প’র্ক ছিল। একপর্যায়ে তাদের এ সম্প’র্ক ন’ষ্ট হয়ে যায়। এরই মধ্যে মানিক বিয়ে করে দুই স’ন্তানের বাবা হন। কিন্তু তারপরও মৌকে ভু’লে যাননি তিনি।

২০১৫ সালের ১৬ জুলাই সন্ধ্যার পর মৌ মার্কে’টে ঈদের কেনাকা’টা করে বাড়ি ফিরছিলেন। ওই সময় তার বাড়ি থেকে কিছুটা দূরে কালীর’ডাঙ্গা নামকস্থানে আ’সামি মানিক তাকে কু’পিয়ে গু’রুতর আ’হত করেন।

এ সময় মৃ’ত্যু নিশ্চিত করতে তার গায়ে পেট্রল ঢেলে আ’গুন ধরিয়ে দেন মামুন। এতেও তার মৃ’ত্যু না হওয়ায় ইটদিয়ে আ’ঘাত করে মৃ’ত্যু নিশ্চিত করে মোটরসাইকেলে করে পা’লিয়ে যায় তিনি।

এই ঘ’টনায় নি’হত মৌর বাবা আব্দুল মালেক বা’দী হয়ে অ’জ্ঞাতদের আ’সামি করে ১৭ জুলাই মা’মলা করেন।

পরে মৌর ডায়েরি দেখে অ’ভিযান চা’লিয়ে ২৬ জুলাই আ’সামি মানিককে গ্রে’প্তার করে র‌্যা’ব। ২৭ জুলাই তাকে আ’দালতে সোপর্দ করলে তিনি সিনিয়র জু’ডিশিয়াল ম্যা’জিস্ট্রেটের কাছে নিজের দোষ স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় স্বী’কারোক্তিমূ’লক জবানব’ন্দি দেন।

সাক্ষ্য-প্রমাণ শেষে বিচারক রোববার আ’সামির উপস্থিতিতে যাবজ্জীবন সশ্রম কা’রাদ’ণ্ডের রায় দেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here