সম্প্রতি বাংলাদেশি পণ্যে চীনের দেওয়া শুল্কমুক্ত সুবিধা ইস্যুতে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ভারতের প্রভাবশালী বাংলা গণমাধ্যম আ’নন্দবাজার পত্রিকাসহ আরও কয়েকটি গণমাধ্যম।

‘লাদাখের পরে ঢাকাকে পাশে টানছে বেজিং’ শিরোনামের ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, বাণিজ্যিক লগ্নি আর খয়রাতির টাকা ছড়িয়ে বাংলাদেশকে পাশে পাওয়ার চেষ্টা নতুন নয় চীনের। লাদাখে ভারতের স’ঙ্গে সীমান্ত-সং’ঘর্ষে উত্তাপ ছড়ানোর পরে ফের নতুন উদ্যমে সে কাজে নেমেছে বেজিং।

প্রতিবেদনে খয়রাতি শব্দ ব্যবহার বাংলাদেশের মানুষ ভালোভাবে নেয়নি, নেওয়ার কথাও নয়।এনিয়ে সামাজিক মাধ্যমেও সরব নেটিজেনরা।বি’ষয়টি নিয়ে এবার কথা বললেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন।

তিনি বলেছেন, বাংলাদেশের পণ্যে চীন স’রকারের দেয়া শুল্কমুক্ত সুবিধাকে ভারতীয় বিভিন্ন গণমাধ্যমে ‘খয়রাতি’ উল্লেখ করে যে খবর প্রকাশ করা হয়েছে, সেটা ‘ছোট মা’নসিকতার পরিচয়’।

তিনি বলেন, এ বি’ষয়ে ভারতীয় কয়েকটি পত্রিকার প্রতিবেদন আমাদের নজরে এসেছে। চীনের দেয়া সুবিধা সম্প’র্কে যে শব্দের ব্যবহার তারা করেছে তা একেবারেই অগ্রহণযোগ্য। তবে এর বি’রুদ্ধে আমরা কোনো ব্যবস্থা নিতে চাই না।

যেসব পত্রিকা এই ভাষা ব্যবহার করেছে তারা ‘সাংবাদিকতার নৈতিকতা বিবর্জিত’ কাজ করেছে বলেও মনে করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

বাংলাদেশের পররাষ্ট্র ম’ন্ত্রণালয় গত ১৯ জুন জানায়, চীনের বাজারে আরও পাঁচ হাজার ১৬১টি পণ্যের শুল্কমুক্ত রফতানি সুবিধা পেয়েছে বাংলাদেশ। এর মাধ্যমে দেশটিতে মোট শুল্কমুক্ত পণ্যের সংখ্যা দাঁড়াল আট হাজার ২৫৬টি। এর ফলে চীনে বাংলাদেশের মোট রফতানি পণ্যের ৯৭ শতাংশই শুল্কমুক্ত সুবিধার আওতায় এলো।

ম’ন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্টরা জানান, বাংলাদেশ এখন মধ্য আয়ের দেশে উন্নীত হওয়ার পথে থাকলেও স্বল্পোন্নত দেশ হিসেবে বাণিজ্যের ওই প্রাধিকারটি পেতে দীর্ঘদিন ধরে দু’দেশের আলোচনা চলছিল। সম্প্রতি এটি দিতে সম্মত হয় চীন স’রকার। আগামী ১ জুলাই থেকে বেইজিং প্রদত্ত সুবিধার ওই ঘোষণা কার্যকর হতে যাচ্ছে।

কিন্তু সম্প্রতি সী’মান্তে ভারতের সে’নাদের পে’টানো চীন কেন বাংলাদেশকে এই মুহূর্তে এমন সুবিধা দিলো, তা নিয়ে নাখোশ সেদেশের গণমাধ্যম। সেই অসন্তোষই প্রকাশ পায় তাদের প্রতিবেদনে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here