খুলনার বটিয়াঘাটা উপজে’লায় কুলটিয়া গ্রামে এক অজিয়ার রহমান মোল্লার (৪০) লালসার শি’কার হয়ে ১২ বছরের এক মাদরাসা ছাত্রী তিন মাসের অ’ন্তঃসত্ত্বা হয়েছে। মঙ্গলবার (৩ নভেম্বর) দুপুরে অ’ভিযুক্ত অজিয়ারকে আ’টক করে পুলিশে দিয়েছে গ্রামবাসী। সে কুলটিয়া গ্রামের বাহের মোল্লার ছেলে। ওই মাদরাসা ছাত্রীর ফুফা অ’ভিযোগ করে বলেন, মেয়েটির বাবা প্রবাসী। মা অন্যত্র বিয়ে করে চলে যাওয়ায় বৃ’দ্ধা দাদীর কাছে থাকে।

প্রতিবেশী অজিয়ার গত চার মাস ধরে মেয়েটিকে প্রথমে ফুসলিয়ে ও পরে খু’নের ভ’য় দেখিয়ে ধ”ণ করে। তার শা’রীরিক পরিবর্তন দেখে চিকিৎসকের কাছে নেয়ার পর জানতে পারি মেয়েটি তিন মাসের অ’ন্তঃসত্ত্বা। তাকে গত সোমবার বিকেলে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

ধ’র্ষক অজিয়ারের দুইটি মেয়ে আছে। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বটিয়াঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রবিউল কবির বলেন, অ’ভিযুক্ত অজিয়ার রহমান মোল্লাকে গ্রে’ফতার করা হয়েছে। তার বি’রুদ্ধে ধ”ণের অ’ভিযোগে মা’মলা করা হবে।

আরও পড়ুন: ঢাবি ছাত্রীর ধর্ষণ মামলা: নুরসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন ২৫ নভেম্বর

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রীকে ধর্ষণ ও ধর্ষণে সহযোগিতা সংক্রান্ত আইনে এবং ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের সাবেক সহ-সভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুরসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল ফের পিছিয়েছে। আগামী ২৫ নভেম্বর নতুন দিন ধার্য করেছেন আদালত।

বুধবার মামলাটির তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য দিন নির্ধারিত ছিল। কিন্তু এদিন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কোতয়ালী জোনাল টিমের পুলিশ পরিদর্শক (নিরস্ত্র) মো. ওয়াহিদুজ্জামান প্রতিবেদন দাখিল করতে পারেননি। এজন্য মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট ইলিয়াস মিয়া পরবর্তী প্রতিবেদন দাখিলের জন্য নতুন করেন এ তারিখ ঠিক করেন।

গত ২১ সেপ্টেম্বর কোতয়ালি থানায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের সাবেক সহসভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুরসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের ওই শিক্ষার্থী কোতয়ালী থানায় মামলাটি করেন।

মামলার অপর আসামিরা হলেন, বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক নাজমুল হাসান সোহাগ, একই সংগঠনের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন, বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক মো. সাইফুল ইসলাম, বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের সভাপতি নাজমুল হুদা এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আব্দুল্লাহিল কাফি।

বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুনকে প্রধান আসামি করে ধর্ষণ মামলাটি করেন ওই ছাত্রী। মামলাটিতে ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুরসহ আরও পাঁচ জনকে সহযোগিতার অভিযোগে আসামি করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here