উৎসবকে ঘিরে লাগাতার কমতে শুরু করেছে সোনার দর। গত কয়েক দিনের ধারাবাহিকতায় ভারতের বাজারে আবারও কমেছে এই ধাতবের মূ’ল্য। মাল্টি কমোডিটি এক্সচেঞ্জের দেয়া সর্বশেষ ত’থ্য অনুযায়ী গত শুক্রবারে ডিসেম্বরের ফিউচার দাম ০.১৩ শতাংশ কমেছে। অর্থাৎ প্রতি আউন্সে মূ’ল্য হ্রাস পেয়ছে ২.৫০ ডলার। ফলে প্রতি আউন্সে সোনার মূ’ল্য বন্ধ হয়েছে ১৯০৬.৪০ ডলারে।

অন্যদিকে আন্তর্জাতিক বাজারেও দরপতন লক্ষ্য করা গেছে। যেখানে শুক্রবার (১৬ অক্টোবর) প্রতি আউন্স সোনার দর কমেছে ৯ দশমিক ৪২ ডলার। যেখানে মূ’ল্য দাঁড়িয়েছে ১৮৯৯ দশমিক ২৯ ডলারে।

রুপোর দাম অবশ্য ডিসেম্বরে বেড়েছে বেশ খানিকটা। প্রতি আউন্স রুপার দাম গিয়ে ঠেকেছে ২৪.৪১ ডলার। আন্তর্জাতিক বাজারে রুপোর দাম ০.১৪ ডলার কমে ২৪.১৬ ডলার প্রতি আউন্সে বন্ধ হয়েছে৷

বাজার বিশ্লেষকদের মতে সোনার দর পরে যাওয়া মানে এই না, পুরনো দামে ফিরে যেতে পারে মূ’ল্য। শেয়ার বাজারের মূ’ল্য হিসেব করাটা নেহাতই ভু’ল বলে মনে করছেন বাজার বিশেষজ্ঞরা। তাদের মতে দীপাবলির আগে সোনার দাম সেভাবে বাড়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। বর্তমানে সোনা ৫০ হাজার টাকা হলেও সেটা সর্বোচ্চ ৫২ হাজারে গিয়ে ঠেকতে পারে বলে ধারনা করা হচ্ছে। এছাড়া রুপার দামের মধ্যেও খুব বেশি তারতম্য দেখা যাবে না বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

সোনার এমন দরপতনের কারন হিসেবে বাজার বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন ডলারের বিপরীতে টাকার মূ’ল্য বৃ’দ্ধি পাওয়াতেই এমন অবস্থা বিরাজ করছে। এক ডলারের বিপরীতে বর্তমান মূ’ল্য ৭৩-৭৪ টাকা হলেও ক’রোনার সময় সেটা গিয়ে দাড়িয়েছিল ৭৮ টাকায়। ফলে তখন সোনার মূ’ল্যের উর্ধ্বগতি দেখা গিয়েছিল। তবে সেই অবস্থা ধীরে ধীরে কে’টে যাচ্ছে।

এদিকে লাগাতার সোনার মূ’ল্য কমে যাওয়াতে ক্রেতারা ভীর জমাচ্ছেন অলঙ্কারের দোকানে। পূজায় ভারতের বাজারে সোনার চা’হিদা সবসময়েই বেশি থাকে। এবার ক’রোনার কারনে কিছুটা কম হলেও দাম কমতে শুরু করার সোনার চা’হিদা কিছুটা বৃ’দ্ধি পেতে পারে বলে ধারনা হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here