গত বৃহস্পতিবার (১ অক্টোবর) একটি অনুষ্ঠান থেকে রাতে বাড়ি ফিরেই ব’র্বোর’চিত হা’ম’লা আর পাশবিক নি’র্যা’তনের শি’কার হয়ে মা’রা যায় তিন্নি।স’রেজ’মিনে তিন্নির বা’ড়িতে গিয়ে দেখা যায়, ঘরের বি’ভিন্ন জায়’গায় ছড়িয়ে-ছি’টিয়ে আছে তিন্নির বই-খাতা আর বিশ্ববি’দ্যালয় থেকে পাওয়া নানা ক্রেস্ট-পু’রস্কার। সাদামা’টা তিন্নির জীবন-যাপ’ন ছিল সহ’জ স’রল।

প্রতি’বে’শীরা জানান, খুবই মেধাবী শি’ক্ষার্থী ছিলেন তিন্নি। খুবই হাসিখুশি ও সাদামাটা জীবন-যাপন ছিলো তার। এ ঘটনার সঙ্গে’ যারা জ’ড়ি’ত তাদে’র দ্রুত গ্রে’ফতা’র করে সর্বো’চ্চ শা’স্তি’র আওয়’তায় নেয়ার দা’বি তাদের।তারা জানান, এ ঘ’টনার মূল হোতা তিন্নির বড় বোন মু’ন্নির সাবে’ক স্বামী জামি’রুল’কে এখনও পু’লিশ গ্রে’ফ’তার করতে পারিনি। দ্রুত তাকে আ’ট’কে’র দাবি জানিয়ে কঠিন শা’স্তি’র দাবি করেন তারা।

এদিকে ঘটনা পর থেকে নি’হ’ত তিন্নির পরিবার ও স্বজনরা আ’সা’মিদের হু’মকির মুখে রয়ে’ছেন বলে জানিয়ে’ছে পরিবার। তবে ঘটনার পর থেকে তিন্নি’র বাড়ি আর আশ’পা’শের এলাকায় আ’ইনশৃ’ঙ্খলা বাহিনী কঠোর নজ’রদা’রির মধ্যে নি’য়েছে।ঝিনাইদহ অ’তিরিক্ত পু’লিশ সুপার, (অ’প’রাধ ও প্রশাসন) আনোয়ার সাইদ জানান, গত বৃহস্প’তিবার রাতে শৈল’কুপা থা’না পু’লিশ সংবাদ পায় একটি মে’য়ে গলায় ফাঁ’স দিয়েছে।

এমন সংবাদের ভি’ত্তিতে পু’লিশ এসে দেখে এলাকার লোকজন মে’য়ে’টিকে নামিয়ে হাসপা’তা’লের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। তাকে কুষ্টিয়া সদর হাস’পাতা’লে ভর্তি করা হয়। সেখানে তিন্নি মা’রা যাওয়া’র পর কুষ্টিয়া থা’নার অফি’সারা তার সুরত’হাল করে এবং তারপ’রই তার দা’ফ’ন সম্পন্ন’ করা হয়।

পরব’র্তীতে ভি’কটিমের মা বা’দী হয়ে রাতেই ৮ জনের নাম উল্ল’খেসহ অ’জ্ঞাত আরো ৫ থেকে ৬ জনকে আ’সা’মি করে শৈল’কুপা থা’নায় একটি মা’ম’লা দায়ের করেন। আ’সা’মি’দের মধ্যে চার’জনকে গ্রে’ফ’তার করতে সক্ষম হয়ে’ছে পু’লিশ।আনো’য়ার সাঈদ আরো জানান, তিন্নি’কে ধ’র্ষ’ণ করা হয়ে’ছে কিনা, এখন’ই আম’রা বলতে পারছি না। ম’য়নাত’দন্তে’র রিপো’র্ট হাতে পেলে বিষ’য়টি জানা যাবে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here