প্রা’ণঘা’তী ক’রোনাভা’ইরাসেের কারণে এ বছর এইচএসসি পরীক্ষা হচ্ছে না। তার বদলে ভিন্ন পদ্ধতিতে মূ’ল্যায়নের সি’দ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এবার উচ্চ মাধ্যমিকের পরীক্ষা না নিয়ে জেএসসি ও এসএসসির ফলের গড় করে শিক্ষার্থীদের মূ’ল্যায়ন করা হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি।

শিক্ষামন্ত্রী আরও জানান, এইচএসসি ও সমামানের পরীক্ষায় একবার ফেল করে যারা এবার পরীক্ষায় বসায় প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন, এইচএসসির পরীক্ষা না নেয়ার সি’দ্ধান্তে তারা দারুণ সু’খবর পাচ্ছেন। গতবার এই পরীক্ষায় যারা ফেল করেছেন তাদেরও জেএসসি ও এসএসসি পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে মূ’ল্যায়ন করা হবে।

উল্লেখ্য, গতবার এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ১৩ লাখ ৩৬ হাজার ৬২৯ জন শিক্ষার্থী অংশ নেয়। তাদের মধ্যে পাস করে নয় লাখ ৮৮ হাজার ১৭২ জন। সেই হিসেবে গত বছর উচ্চ মাধ্যমিকে ফেল করেছিলেন তিন লাখ ৪৮ হাজার ৪৫৭ জন শিক্ষার্থী, যারা এবার আর কোনও পরীক্ষায় অংশ না দিলেও উচ্চ মাধ্যমিকের সনদ পাচ্ছেন।

আরও পড়ুন= আগের বছর ফেল করা শিক্ষার্থীদের যেভাবে মূ’ল্যায়ন করা হবে

যারা আগের বছর এইসএসসি পরীক্ষা দিয়ে এক বা ততধিক বি’ষয়ে অকৃতকার্য হয়েছিল তাদের ক্ষেত্রেও জেএসসি ও এসএসসির ফলাফলের উপর মূ’ল্যায়ন করা হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

বুধবার দুপুরে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার বি’ষয়ে সি’দ্ধান্ত জানাতে শিক্ষা মন্ত্রণালয় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ ত’থ্য জানান।

বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ভর্তি পরীক্ষা কি পদ্ধতিতে হবে, সে বি’ষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, বি’ষয়টি সি’দ্ধান্ত নিবে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো। তাই এ সম্প’র্কে এখনো নির্দিষ্ট করে বলা যাচ্ছে না।

ডা. দীপু মনি বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে কিভাবে পরীক্ষা নেয়া যায় সেটাও একটি বড় চ্যালেঞ্জ। পরীক্ষার জন্য দ্বিগুণ কেন্দ্র প্রয়োজন হবে। তবে এটি শিক্ষা বোর্ডগুলোর জন্য কঠিন হয়ে পড়বে। বি’ষয় কমিয়ে বা সিলেবাস কমিয়েও হয়তো পরীক্ষা নেয়া যায়।

কিন্তু সেটা করলেও কিছু স’মস্যা তৈরি হবে। এক্ষেত্রে অনেক শিক্ষার্থী ক্ষ’তিগ্রস্ত হতে পারে। পরীক্ষার সময়ে কোন শিক্ষার্থী আ’ক্রান্ত হলে তিনি হয়ত কেন্দ্রে আসতে পারবেন না। এক্ষেত্রে অন্যান্য দেশ কি করছে সেটিও আমরা দেখছি।

তিনি আরো বলেন, বিভিন্ন দেশ তাদের পরীক্ষা বাতিল করেছে, কেউ-কেউ স্থগিত করেছে। আমাদের কাছে পরীক্ষার্থীদের জীবনের নিরাপত্তা গুরুত্বপূর্ণ। এসব বিবেচনায় আমরা এইচএসসি পরীক্ষা সরাসরি গ্রহণ না করে ভিন্ন পদ্ধতিতে মূ’ল্যায়নের সি’দ্ধান্ত নিয়েছি। কিন্তু এক্ষেত্রে গ্রহণযোগ্যতা ও শিক্ষার্থীদের কোনটি ভালো হবে সেটি দেখতে হবে।

মন্ত্রী বলেন, এসএসসি এবং জেএসসির ফলাফল অনুযায়ী গড় ফলাফল মূ’ল্যায়ন করে ফলাফল নির্ধারণের সি’দ্ধান্ত নিয়েছি। অনেক এসএসসি পরীক্ষার্থী এইচএসসিতে ভিন্ন বিভাগে যান সেক্ষেত্রে তাদের বি’ষয়ে কি হবে সেজন্য আমরা সি’দ্ধান্ত নেবো। ডিসেম্বরের মধ্যেই চূড়ান্ত ফলাফল ঘোষণা করব। যাতে জানুয়ারি থেকে বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি কার্যক্রম শুরু হতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here