মানিকগঞ্জ জে’লার হরিরামপুর থানার বসন্তপুর বাগডাংগী নামক দুর্গম পদ্মা চর এলাকা থেকে ১৬ বছর ব’য়সী এক মে’য়েকে ধ’র্ষ’ণের অ’ভিযোগে তার বা’বাকে গ্রে’প্তার করেছে পু’লিশের অ’পরাধ ত’দন্ত বিভাগ (সিআইডি)। গ্রে’প্তারকৃতের নাম-শরীফুল ইসলাম।

সে কথিত সা’ধক স’ন্ন্যাসী হিসেবে নিজেকে পরিচয় দিতো। শরীফুলের বাড়ি নাটোরের বড়াইগ্রামে। সিআইডি ডিআইজি শেখ নাজমুল আলম আজ বুধবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানিয়েছেন।

তিনি জানান, মানিকগঞ্জ জে’লা সিআইডি’র সহায়তায় গত ৬ অক্টোবর শরীফুলকে গ্রে’প্তার করা হয়েছে। এ ছাড়াও ২০১৫ সালের ২৪ আগস্ট শরীফুলের বি’রুদ্ধে থানায় ধারা- ২২(গ)/২৫, ১৯৯০ সালের মা’দকদ্রব্য নি’য়ন্ত্রণ আইন এর মা’মলা রয়েছে।

ধ’র্ষ’ণের ঘ’টনার সম্প’র্কে সিআইডি জানায়, কথিত সাধক শরীফুল স’ন্ন্যাসীর বেশ ধারণ করলে দুই বছর আগে তার স্ত্রী তা’কে ছেড়ে চলে যায়। এ সময় তার মে’য়ে নাটোর দীঘাপাতিয়া পূর্ব হাগুরিয়া গ্রামে না’নার বাড়িতে চলে যায়।

গত ঈদুল আজহার ছয়দিন পূর্বে শরীফুল বিভিন্ন কৌশলে মে’য়েকে নাটোর বড়াইগ্রামে তার বাড়িতে নিয়ে আসে। বাড়িতে আনার পর সে মে’য়েটির ও’পর শা’রীরিক ও মা’নসিক নি’র্যাতন শুরু করে। একপর্যায়ে মে’য়েকে ভ’য়ভীতি দেখিয়ে ও আ’টক রেখে জো’রপূর্বক ধ’র্ষ’ণ করে।

ডিআইজি শেখ নাজমুল আলম আরও জানান, প্রাথমিক জি’জ্ঞাসাবাদে গ্রে’প্তারকৃত আ’সামি শরীফুল মে’য়েকে নি’য়মিত ধ’র্ষ’ণের কথা স্বী’কার করেছেন। এ সময় বাড়িতে কোন লোকজন এলে মে’য়েটির স’ঙ্গে কাউকে দেখা বা কথা বলতে দেওয়া হতো না। একপর্যায়ে মে’য়েটি তার না’নীর স’ঙ্গে যো’গাযোগ করতে সমর্থ হয়।

পরে মা ও নানী মে’য়েটিকে উ’দ্ধার করে নাটোরের বড়াইগ্রাম থানায় একটি মা’মলা দা’য়ের করেন। নাটোরের বড়াইগ্রাম থানার মা’মলা দা’য়ের পর অ’ভিযুক্ত আত্মগো’পন করেছিল। গ্রে’প্তারকৃত আ’সামি শরীফুলকে নাটোর জে’লা পু’লিশের কাছে হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে বলেও জানিয়েছে সিআইডি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here