ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী, নাম উলফাত আরা তিন্নিকে (২৪) ধ’র্ষণের পর হ’ত্যা করার অ’ভিযোগ পাওয়া গিয়েছে। তিনি হিসাব বিজ্ঞান ও ত’থ্য পদ্ধতি বিভাগের ২০১২-১৩ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী।

বড় বোনের সাবেক স্বা’মীর নি’র্যাতনের শি’কার হয়ে গতকাল শুক্রবার (২ অক্টোবর) মধ্যরাতে নিজ বাড়িতে সিলিং ফ্যানে ঝুলে আত্মহ’ত্যা করেছেন বলে জানিয়েছে তার পরিবার।

শুক্রবার রাতে শৈলকুপা থানায় ১২ জনকে আ’সামি করে বা’দী হয়ে না’রী ও শি’শু নি’র্যাতন আইনে মা’মলা দা’য়ের করেন নি’হত তিন্নির মা হালিমা বেগম। এ ঘ’টনায় এখন পর্যন্ত এজাহারভুক্ত ৪ আ’সামিকে গ্রে’প্তার করেছে পু’লিশ।

এই মা’মলার মূ’ল হোতা তিন্নির বোন মিন্নি ওরফে মুন্নির সাবেক স্বা’মী জামিরুল এখনো ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়েছে। এদিকে তিন্নির ময়না ত’দন্ত রিপোর্ট এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে জানাতে পারেনি পু’লিশ।

তবে তারা বলছে ময়না ত’দন্তে ধ’র্ষণের আলামত মিলেছে। শৈলকুপা থানার ভারপ্রা’প্ত কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম জানিয়েছেন, আ’সামিদের গ্রে’প্তারে ব্যাপক অ’ভিযান চলছে। অন্যদিকে, শনিবার (৩ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ১১টার দিকে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা মানবন্ধ’ন কর্মসূচী পালন করবে। তিন্নিকে হ’ত্যার এ বর্বোরচিত ঘ’টনার সুষ্ঠ ত’দন্ত ও বিচার দাবিতে এ মা’নববন্ধ’নের ডাক দিয়েছে তারা।

আরও পড়ুন= সিলেটে আবার কিশোরী ধ’র্ষি’ত, এবারও অ’ভিযুক্ত ছাত্রলীগ কর্মী

সিলেট নগরের দাড়িয়াপাড়া এলাকায় এক কিশোরীকে (১৪) ধ’র্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। অ’ভিযুক্ত কিশোর (১৮) ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত বলেও জানা গেছে।
ওই কিশোরী এখন সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে ভর্তি আছে।

কিশোরীর পরিবারের অভিযোগ, গত ২৯ সেপ্টেম্বর কিশোরীকে ধ’র্ষণ করে ওই কিশোর।

এ ব্যাপারে সিলেট নগরের ২ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর বিক্রম কর সম্রাট বলেন, আমিও এরকম একটি অভিযোগ পেয়েছি। ঘ’টনাটি সম্ভবত ২/৩ দিন আগে ঘটেছে। অ’ভিযুক্ত কিশোর দাড়িয়াপাড়া এলাকায় ভাড়া থাকে। আর কিশোরী নগরের আরেকটি এলাকায় থাকে।

তিনি বলেন, অভিযোগকারী কিশোরীর পরিবার আর্থিকভাবে তেমন স্বচ্ছল নয়, তাই দুদিন আগে ঘ’টনা ঘটলেও সম্ভবত সমঝোতার চেষ্টা করা হয়েছিলো। আবার তাদের দুজনের মধ্যে প্রেমের সম্প’র্ক ছিলো বলেও একটি পক্ষ দাবি করেছে। যদিও কোনো কিছুই এখন পর্যন্ত আমি নিশ্চিত নই।

সম্রাট বলেন, অ’ভিযুক্ত কিশোর ছাত্রলীগের মিছিল-মিটিংয়ে যায় বলে শুনেছি। এখন তো সবাই-ই ছাত্রলীগ।

এ ব্যাপারে কতোয়ালি থানার ভারপ্রা’প্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সেলিম মিঞা ঘ’টনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানা, এ ব্যাপারে ওই কিশোরীর পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় মা’মলা দা’য়েরের প্রক্রিয়া চলছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here