চলমান ম’হামা’রি ক’রোনা ভাই’রাসের মধ্যে দরকার ছাড়া বাসা থেকে বের না হওয়াই ভালো। তবুও জরুরি প্রয়োজনে কোথাও না কোথাও যেতে হতে পারে।

তার আগে দেখে নিন মঙ্গলবার (২৯ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর কোন কোনো এলাকার দোকানপাট এবং মার্কেট বন্ধ থাকবে।

বন্ধ থাকবে যেসব এলাকা

কাঁঠালবাগান, হাতিরপুল, মানিক মিয়া এভিনিউ, রাজাবাজার, মণিপুরিপাড়া, তেজকুনীপাড়া, ফার্মগেট, কারওয়ান বাজার, নীলক্ষেত, কাঁটাবন, এলিফ্যান্ট রোড, শুক্রাবাদ, সোবহানবাগ, ধানমন্ডি, হাজারীবাগ, জিগাতলা, রায়েরবাজার, পিলখানা, লালমাটিয়া।

বন্ধ থাকবে যেসব মার্কেট

বসুন্ধরা সিটি, মোতালেব প্লাজা, ইস্টার্ন প্লাজা, সেজান পয়েন্ট, নিউ মার্কেট, চাঁদনী চক, চন্দ্রিমা মার্কেট, গাউছিয়া, ধানমন্ডি হকার্স, বদরুদ্দোজা মার্কেট, প্রিয়াঙ্গন শপিং সেন্টার, গাউসুল আজম মার্কেট, রাইফেলস স্কয়ার, অর্চাড পয়েন্ট, ক্যাপিটাল মার্কেট, ধানমন্ডি প্লাজা, মেট্রো শপিং মল, প্রিন্স প্লাজা, রাপা প্লাজা, আনাম র‌্যাংগস প্লাজা, কারওয়ান বাজার ডিআইটি মার্কেট, অর্চিড প্লাজা।

মেডিক্যাল কলেজে প্রতি ১০ জন ছাত্রের জন্য একজন শিক্ষক থাকতে হবে

মেডিক্যাল কলেজে প্রতি ১০ জন ছাত্রের জন্য একজন শিক্ষক এবং ন্যূনতম ছাত্র থাকতে হবে ৫০ জন। প্রত্যেক বি’ষয়ে ন্যূনতম পাঁচজন করে শিক্ষক থাকতে হবে। এমন বিধান রেখে ‘বেস’রকারি মেডিক্যাল ও ডেন্টাল কলেজ আইন, ২০২০’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

সোমবার (২৮ সেপ্টেম্বর) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে ভার্চ্যুয়াল মন্ত্রিসভার বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয়েছে। গণভবন থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও স’চিবালয় প্রান্ত থেকে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীরা অংশ নেন। বৈঠক শেষে স’চিবালয়ে ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ স’চিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম সাংবাদিকদের এ ত’থ্য জানান।

তিনি বলেন, এতোদিন বেস’রকারি মেডিক্যাল ও ডেন্টাল কলেজ দু’টি নীতিমালার মাধ্যমে চলতো। কিন্তু শুধু নীতিমালা দিয়ে সবকিছু সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা করা সম্ভব হচ্ছে না, সুনির্দিষ্ট আইন প্রয়োজন। তাই স্বা’স্থ্য বিভাগ থেকে আইনের খসড়া নিয়ে আসা হয়েছে।

স’চিব বলেন, বেসিরকারি মেডিক্যাল কলেজ ও ডেন্টাল কলেজের একাডেমিক অনুমোদন, নবায়ন, শিক্ষা কার্যক্রম এবং কত ছাত্র থাকবে ও কী সুবিধাদি থাকবে, শিক্ষকের কী যোগ্যতা থাকবে, কলেজগুলো কোন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে থাকবে, অর্থ ব্যবস্থাপনা কেমন থাকবে- এ বি’ষয়গুলো আইনে উল্লেখ করা হয়েছে।

নীতিমালায় অনেক কিছু পরিষ্কার না থাকায় অনেক মেডিক্যাল কলেজ অস্থায়ী শিক্ষক দিয়ে চা’লানো হয় জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ স’চিব বলেন, ২৫ শতাংশের বেশি খণ্ডকালীন শিক্ষক রাখা যাবে না, ৭৫ শতাংশ স্থায়ী শিক্ষক থাকতে হবে।

মন্ত্রিপরিষদ স’চিব বলেন, ডেন্টাল কলেজের জন্য দুই কোটি এবং মেডিক্যাল কলেজের জন্য তিন কোটি টাকা রিজার্ভ ফান্ড রাখার বিধান রয়েছে। আর মেডিক্যাল কলেজে ২৫০ শয্যা এবং ডেন্টালে কমপক্ষে ৫০ শয্যার মধ্যে বিনা পয়সায় চিকিৎসায় ১০ শতাংশ শয্যা গরিব মানুষের জন্য রাখতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here