বিশ্বের অন্যান্য দেশে যখন ক’রোনা ম’হামা’রিতে নাজেহাল অবস্থা ঠিক তখনি বাংলাদেশে ক’রোনা সং’ক্র’মণের হার বাংলাদেশে অনেকটা নিয়ন্ত্রনেই বলা চলে। দিন দিন কমছে সং’ক্র’মণ ও মৃ’তের সংখ্যা।

বিভিন্ন দেশে দ্বিতীয় দফায় ক’রোনার সং’ক্র’মণ হচ্ছে। বি’ষয়টিকে মাথায় রেখে বাংলাদেশে আবার শাটডাউন কার্যকর করা হবে কি না? সে বি’ষয়ে মন্ত্রিপরিষদ স’চিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেছেন, মাত্রাটা কেমন হবে আমরা তো জানি না।

তবে আমাদের প্রস্তুতি তো রাখতে হবে।গত সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) ভার্চ্যুয়াল মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে স’চিবালয়ে ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ স’চিব এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলে দিয়েছেন সেকেন্ড ওয়েভ যদি আসে, আমাদের অ’ভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে যদি সচেতন হই, তাহলে আমাদের জন্য এটা সুবিধা হবে। পাশাপাশি উনি নির্দেশনা দিয়েছেন অক্টোবরের শেষ বা নভেম্বরের মাঝামাঝি থেকে ঠাণ্ডার প্র’কোপটা বাড়তে পারে।

সেক্ষেত্রে আমাদের লোকজনের নিউমোনিয়া, সর্দি, জ্বর বা অ্যাজমাটিক স’মস্যা থাকে, সবাইকে প্রস্তুতি নিতে বলেছেন। এসবে আ’ক্রান্ত হলে যেন চিকিৎসা করান। কো’ভিডের সেকেন্ড ওয়েভ এলে মাঠ পর্যায়ে সেটাকে কীভাবে মো’কাবিলা করতে হবে সেটার জন্য এখন থেকেই প্রস্তুতি নিতে বলেছেন।

দ্বিতীয় ওয়েভ নিয়ে মঙ্গলবার (২২ সেপ্টেম্বর) আন্তঃম’ন্ত্রণালয় সভা আহ্বন করা হয়েছে জানিয়ে স’চিব বলেন, আমরা বসে বিস্তারিত কর্মসূচি নেবো। তবে দ্বিতীয় ওয়েভ আসার আগে স’রকার মাস্ক পরা নিশ্চিত করতে গুরুত্ব দিচ্ছে। কারণ, মাস্ক ব্যবহার করা দরকার।

তিনি আরও বলেন, সবাই মিলে ঠিকভাবে মাস্ক যদি ব্যবহার না করি তাহলে কিন্তু মুশকিল। কারণ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দুই তরফ থেকে যদি মাস্ক পরা থাকে তাহলে ৯৫-৯৮ শতাংশ নিরাপদ।

আর এক তরফ থেকে মাস্ক থাকলে ৬০-৬৫ শতাংশ নিরাপদ। মাস্ক যদি না পরে তাহলে কিন্তু কোনো কিছুই সফল হবে না। এজন্য সবাইকে উদ্বুদ্ধ করতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here