ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সং’সদের (ডাকসুর) সাবেক ভিপি নুরুল হক নুরকে মা’নসিক হাসপাতালে চিকিৎসা করানো জরুরি বলে মন্তব্য করেছে ছাত্রলীগের ঢাবি শাখার সভাপতি সনজিৎ চন্দ্র দাস।

নূরসহ অন্যান্যদের বি’রুদ্ধে যে মা’মলা হয়েছে সেই মা’মলায় সনজিৎ চন্দ্র দাস নেপথ্য ভূমিকা রেখেছেন বলে নূর যে অ’ভিযোগ তুলেছেন তার জবাবে শুক্রবার (২৫ সেপ্টেম্বর) একটি গণমাধ্যমকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি এ মন্তব্য করেন।

সনজিৎ বলেন, ‘ওই মে’য়ের স’ঙ্গে আমার বিন্দুমাত্র যোগাযোগ নেই।

নূরকে মি’থ্যাবা’দী ও মা’নসিক বিকারগ্রস্ত অভিহিত করে তিনি বলেন, ‘কোনো মা’নসিক হাসপাতালে নূরের চিকিৎসা জরুরি।’

এর আগে, গত রোববার (২০ সেপ্টেম্বর) রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) এক শিক্ষার্থী লালবাগ থানায় একটি ধ’র্ষণ মা’মলা করেন। মা’মলায় মোট ছয়জনকে আ’সামি করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ধ’র্ষণে সহযোগী হিসেবে নুরুল হক নূরের নাম উল্লেখ করা হয়েছে।

পরে সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) শাহবাগের বি’ক্ষো’ভ থেকে নূরসহ সাত জনকে আ’টক করে ডি’বি কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। তবে কিছুক্ষণ পর নূরকে ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি করানো হয়। পরে সেখান থেকে নুরুল হক নূরকে ছেড়ে দেয়া হয়।

হঠাৎ লেবাননের প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ

রাজনৈতিক অচলাবস্থার মধ্যেই পদত্যাগের ঘোষণা দিলেন লেবাননের মনোনীত প্রধানমন্ত্রী মোস্তফা আদিব। শনিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) পদত্যাগের ঘোষণা দিয়ে আদিব বলেন, তিনি নতুন মন্ত্রিসভা গঠন থেকে নিজেকে সরিয়ে রাখতেই এমন সি’দ্ধান্ত।

অর্থ ম’ন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নিয়ে দ্ব’ন্দ্বের জেরে নিরপেক্ষ মন্ত্রীপরিষদ গঠনের দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিলেন প্রধানমন্ত্রী আদিব।

এর আগে গত ৩১ আগস্ট দেশটির প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেন দেশটির শীর্ষস্থানীয় কূটনীতিক মোস্তাফা আদিব। দেশটির সং’সদ সদস্যদের ভোটে তিনি নির্বাচিত হন।

গেল ৪ আগস্ট বৈরুতে ভ’য়াবহ বি’স্ফোরণের পরই নানা ধরনের অস্থিরতা সৃষ্টি হয় লেবাননে। এরপরই ফরাসির প্রে’সিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ’র চা’পে পড়ে নতুন প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ দেন দেশটির প্রে’সিডেন্ট মিশেল আওন।

পদত্যাগের বি’ষয়ে প্রে’সিডেন্টের স’ঙ্গে সাক্ষাৎকারের পর টেলিভিশনে ভাষণ দিয়ে আদিব বলেন, স’রকার গঠন থেকে নিজেকে সরিয়ে নিলাম।

মোস্তাফা আদিব ২০১৩ সাল থেকে জার্মানিতে লেবাননের রাষ্ট্রদূত হিসেবে্ও দায়িত্ব পালন। তিনি অন্তত ২০ বছর লেবাননের সাবেক প্রধানমন্ত্রী নাজিব মিকাতি’র উপদেষ্টা ছিলেন। দীর্ঘ সময় ধরে লেবাননের রাজনীতি খুব কাছ থেকে দেখছেন।

কিছু দিন আগে বৈরুত বন্দরের একটি গুদামে বি’স্ফোরণের পর কার্যত গোটা শহরটি ধ্বং’সাবশেষে পরিণত হয়েছে। ২শ’র বেশি মানুষের মৃ’ত্যু হয়েছে। আ’হত হয়েছেন কয়েক হাজার মানুষ।

অর্থনৈতিক এবং রাজনৈতিকভাবে ভঙ্গুর লেবাননে এখন কে হবেন প্রধানমন্ত্রী সেটি নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।

লেবাননের স’ঙ্কট দ্রু’ত কাটিয়ে উঠতে দ্রু’ত সংস্কারের নির্দেশ দিয়েছেন ফ্রান্সের প্রে’সিডেন্ট ম্যাক্রোঁ। নয়তো দেশটির শীর্ষ কর্মকর্তাদের উপর নি’ষেধাজ্ঞার হু’মকি দিয়ে রেখেছেন তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here