গত দুইদিনে হঠাৎ করেই পেঁয়াজের বাজার অস্থির হয়ে উঠেছে। ভারত থেকে পেঁয়াজ আসা বন্ধ হবার খবরেই ২৪ ঘণ্টা পার হবার আগেই প্রতি কেজি পেঁয়াজের মূ’ল্য বেড়ে যায় ২০ থেকে ৫০ টাকা পর্যন্ত।

পেঁয়াজের এই অস্থিতিশীল অবস্থা সামাল টিতে ট্রেডিং কর্পোরেশব অব বাংলাদেশ (টিসিবি) এবার অনলাইনের মাধ্যমে পেঁয়াজ বিক্রি করার কথা ভাবছে। দেশের ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানগুলোর মাধ্যমে টিসিবি পেঁয়াজ বিক্রি করবে এমনটাই জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

১৬ সেপ্টেম্বর (বুধবার) পেঁয়াজ সহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য মজুদ এবং সরবরাহ ও মূ’ল্য সংক্রান্ত বি’ষয় নিয়ে একটি সংবাদ সম্মেলন করেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। সেখানে তিনি জানান পেঁয়াজ আম’দানি করার বৃহৎ পরিকল্পনা থাকলে শেষ পর্যন্ত ভারত পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দেয়ায় সেটা সম্ভব হচ্ছে না। ফলে ভিইন উপায়ে টিসিবির মাধ্যমেই আরও বেশি পেঁয়াজ আম’দানি করার কথা জানান মন্ত্রী।

তার ভাষ্য, ‘’টিসিবি কখনো বছরে ১০ থেকে ১২ হাজার মেট্রিক টনের বেশি পেঁয়াজ আনে না। তিন-চার মাস তারা দুই হাজার তিন হাজার টন করে বিক্রি করে। এবার আমরা আগে থেকেই চিন্তা করেছিলাম ৩০ থেকে ৪০ হাজার টন আনবো। ভারত পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দেওয়াই আমরা ভাবছি টিসিবির মধ্যমেই আমরা এক লাখ টন পেঁয়াজ আম’দানি করবো।‘’

টিসিবির জনবল স’ঙ্কটের কথা স্বীকার করে মন্ত্রী আরও জানান দেশের ই-কমার্স সাইটগুলোর মাধ্যমে পেঁয়াজ বিক্রি করা হবে। ‘’জনবল সং’কটে টিসিবি একাই এসব পেঁয়াজ বিক্রি করতে পারবে না। তাই আমরা ই-কর্মাস প্রতিষ্ঠানগুলোকে ব্যবহার করে পেঁয়াজ বিক্রি করবো। আমরা খুব আশাবা’দী যে, মাসে অন্তত ১০ থেকে ১২ হাজার টন পেঁয়াজ ই-কমার্সের মাধ্যমে সাশ্রয়ী মূ’ল্যে বিক্রি করতে পারবো। গতবারও টিসিবির আম’দানি করা পেঁয়াজ কিন্তু ডিসিদের মাধ্যমেও বিতরণ করেছি। এবার এসব উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।‘’

প্রস’ঙ্গত, হঠাত করে পেঁয়াজের বাজার অস্থির হয়ে যাবার পর গত রোববার থেকে টিসিবি পেঁয়াজ বিক্রি শুরু করে। ৩০ টাকা কেজিতে একজন ক্রেতা সর্বোচ্চ দুই কেজি করে পেঁয়াজ নিতে পারছেন টিসিবির ট্রাকে করে বিক্রি করা পেঁয়াজ থেকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here