সী’মান্তে হঠাৎ করে সৈন্য জমায়েতের কারণ জানতে ঢাকাস্থ মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে তলব করেছে পররাষ্ট্র ম’ন্ত্রণালয়। রোববার (১৩ সেপ্টেম্বর) সকালে তাকে ডেকে পাঠানো হয়। এ সময় পররাষ্ট্র ম’ন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে এ ঘ’টনার কড়া প্র’তিবাদ জানিয়ে দেশটির রাষ্ট্রদূতকে একটি চিঠি দেয়া হয়।

দুই দেশের সী’মান্তের তিনটি পয়েন্টে মিয়ানমার সৈন্যদের উপস্থিতি দেখা গেছে। গত শুক্রবার সকাল থেকে মাছ ধরার ট্রলারে করে সী’মান্তের নিউন ছুয়াং, মিন গা লার গি ও গার খু ইয়া পয়েন্টে দেশটির সৈন্যরা জড়ো হতে থাকে।

মাছের ট্রলারের উপরের অংশে কাঠ বসিয়ে, নিচে সৈন্যদের থাকার জায়গা করে দিয়ে কৌশলে প্রায় হাজারখানেক সৈন্যকে তারা জড়ো করেছে। এর আগে ২০১৭ সালেও রো’হিঙ্গাদের বাংলাদেশে পাঠানোর আগে এভাবে সী’মান্তে সৈন্য সমাবেশ করে মিয়ানমার।

চলতি সপ্তাহে বিনা উসকানিতে এভাবে সীমান্ত এলাকায় নতুন করে সে’নাসমাবেশের প্র’তিবাদে ঢাকায় মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত অং কিউ মোয়েকে রোববার তলব করা হয় পররাষ্ট্র ম’ন্ত্রণালয়ে। পররাষ্ট্র ম’ন্ত্রণালয়ের মিয়ানমার সেলের মহাপরিচালক মো. দেলোয়ার হোসেনের দপ্তরে সকালে রাষ্ট্রদূত সাক্ষাৎ করেন।

শান্তিপূর্ণ সময়ে সী’মান্তে সৈন্য সমাবেশ দুই দেশের মধ্যে ভু’লবোঝাবুঝি তৈরি হতে পারে বলে এ বি’ষয়ে তাদের কাছে জানতে চাওয়া হয়।

এর আগে বাংলাদেশের সীমানায় হেলিকপ্টার অনুপ্রবেশের ঘ’টনা, নো ম্যানস ল্যান্ড এলাকায় মাইন পুতে রাখাসহ একাধিক ঘ’টনায় মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে বেশ কয়েকবার তলব করেছিলো পররাষ্ট্র ম’ন্ত্রণালয়। প্রতিবারই তার হাতে কড়া নোট পাঠিয়ে এসব ঘ’টনার প্র’তিবাদ করে বাংলাদেশ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here