ব’য়স একটা এমন বস্তু যা সকলে নিজের কাছে ধরে রাখতে চায়। ছাড়তে চায়না। দিনের সাথে সাথে ব’য়স বাড়বেই এবং তার ছাপ আমাদের শ’রীরে পড়বেই। এমনটাই স্বভাবিক। কিন্তু প্রকৃতির সব নিয়ম এবং স্বভাবিকত্ব কে মানুষ কবেই বা পুরোপুরি গ্রহণ করেছে? বরং বরাবরই হেঁটেছে উল্টোদিকে।

ব’য়স বাড়লে যৌ’বন ধীরে ধীরে দূরে দূরে সরে যায়। কিন্তু এই বি’ষয়টা অনেকের নাপসন্দ। তাঁরা চান যে যৌ’বনকে সবসময় নিজের কাছে রেখে দিতে। আর এই কাজ করতে গেলে কোন কোন খাবার গুলোকে বেশি করে খেতে হবে একবার দেখে নিন চট করে।

চকোলেট: প্রথমেই চকোলেটের নাম দেখে হয়তো অবাক হলেন অনেকেই। তবে প্রতিদিন চকোলেট, কোকো বা ওই জাতীয় কিছু খেতে পারলে উচ্চ র’ক্তচা’প, কিডনির স’মস্যা এমনকি ডিমেনশিয়ার মতো অসু’খ থেকে নিজেকে দূরে রাখা সম্ভব হবে।

শ’রীরে র’ক্ত চলাচল স্বাভাবিক রাখতেও সাহায্য করে চকোলেট। আর ত্বকের বলিরেখা রুখতে চকোলেট ফেশিয়ালের কথা তো অনেকেই শুনেছেন।

বাদাম: চেহারায় তারুণ্য ধরে রাখতে বাদামের জুড়ি নেই। বাদাম বা বিশেষ করে আখরোটে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড আছে যা ত্বককে মসৃণ করে ভিতর থেকে উজ্জ্বল করে তোলে। আখরোটে কোলেস্টেরলের মাত্রা খুব কম থাকে। তাই প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় আপনি রাখতে পারেন যে কোনও বাদাম।

টমেটো: টমেটোতে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান লাইকো’পেন যা বিভিন্ন চর্মরো’গ প্রতিরোধ করতে খুবই কার্যকর। এটি ত্বককে সূর্যের ক্ষ’তিকর রশ্মি থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে।

অলিভ অয়েল: অলিভ অয়েল প্রতিদিন রান্নায় ব্যবহার করুন। এ ছাড়া এক চামচ অলিভ অয়েল নিয়ে প্রতিদিন দু’বার করে ত্বকে মালিশ করুন। এটি ত্বকের শুষ্কতা দূর করে এবং সেই স’ঙ্গে যে কোনও দাগ দূর করতে সাহায্য করে।

পালং শাক: পালং শাকে রয়েছে ফাইবার, পটাশিয়েম, ভিটামিন এবং মিনারেল। এতে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি অক্সিডেণ্ট পাওয়া যায় যা দে’হের ফ্রি র‍্যাডিকেল ধ্বং’স করে দেয় এবং ত্বকে ব’য়সের ছাপ পড়তে দেয় না।

হলুদ: হলুদে আছে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি ইনফ্লামমেটরী উপাদান যা হজমশ’ক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। আর তার স’ঙ্গে স’ঙ্গে ব’য়সের ছাপ পড়া রোধে বিশেষ সাহায্য করে থাকে।

ডালিম: দিনটা শুরু করুন এক গ্লাস ডালিমের রস খেয়ে। এটি আপনার ত্বকে বলিরেখা পড়া রোধ করবে। ডালিমে আছে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট যা ত্বকের নমনীয়তা বজায় রেখে তাকে টানটান রাখতে সাহায্য করে।

ব্রকোলি: ডিটক্সিফিকেশন খুবই গুরুত্বপূর্ণ উপাদান তারুণ্যে উজ্জ্বল ত্বকের জন্য। ব্রকোলিতে প্রচুর পরিমাণে ডিটক্সিফিকেশন আছে যা দে’হ থেকে ক্ষ’তিকর উপাদান বের করে দিয়ে কোষকে সতেজ রাখে। সপ্তাহে দুই বা তিন দিন খাদ্য তালিকায় ব্রকোলি রাখু’ন। উপকার পাবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here