প্রা’ণঘা’তী ক’রোনা ভাই’রাসে থমকে গেছে দেশের শিক্ষাব্যবস্থা। অন্যান্য পরিক্ষাগুলো বাতিল করা হলেও উচ্চমাধ্যমিক বা এইচএসসি পরীক্ষা নিয়ে এখনো কোনো সি’দ্ধান্ত নিতে পারেনি বাংলাদেশ স’রকার।

আর তাই এইচএসসি পরীক্ষা নিয়ে ভীষণ দুশ্চিন্তায় আছেন এই নায়িকা। হঠাৎ যদি পরীক্ষার খবর আসে! সিদ্ধেশ্বরী কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী পূজা লকডাউনে পরীক্ষা কীভাবে হবে তা নিয়েও রয়েছেন দুশ্চিন্তায়।

এদিকে নিজের ডায়েট নিয়েও সংবাদমাধ্যমে কথা বলেছেন পূজা। তিনি বলেন, ‘এখনই যদি চূড়ান্ত পরীক্ষা দিতে বলা হয় তবে বি’পদেই পড়বেন তিনি। কারণ আসছে অক্টোবর থেকেই তার ‘হৃদিতা’ নামের ছবির শুটিং শুরু হবে।

’ এই নায়িকা আরো জানান, খাবারদাবারের বি’ষয়ে তার বিশেষ কোন পছন্দ নেই। তবে ওজন বেড়ে যাওয়ার ব্যাপারে পূজার দারুণ ভ’য় রয়েছে।

তিনি বলেন, ‘আমি খেতে খুব পছন্দ করি না। ভারী খাবার তো একদমই না। প্রায় ৬ মাসের মতো ভাত খাচ্ছি না। কেবল চিকেন আর ভেজিটেবল। ফাস্ট ফুড, হেভি ফুড খেয়ে ব্যায়াম করে লাভ কী?’ তবে ফুচকা আর আইসক্রিম তাকে এখনও খুব আকর্ষণ করে।

পূর্ণিমার ১০ সেকেন্ডের ভিডিও, নেট দুনিয়ায় ঝড়!

পূর্ণিমার চলচ্চিত্রে আগমন জাকির হোসেন রাজু পরিচালিত “এ জীবন তোমার আমার” দিয়ে। চলচ্চিত্রটি মুক্তি পায় ১৯৯৭ সালে, তখন তিনি ক্লাস নাইনে পড়তেন। সুন্দর চেহারার অধিকারিণী এই অভিনেত্রী শুরুতেই অভিনয় এর সাথে সাথে অসাধারণ শা’রীরিক সৌন্দর্য এর জন্য সবার মন জয় করে নেন।

মিস ডায়না ও কাল্লু মামা ছায়াছবিতে বেশ খোলামেলা পোশাকে হাজির হয়ে দর্শকদের নজর কাড়েন। ২০০৩ সালে মুক্তি পায় তার সব থেকে সফল ছবি মতিউর রহমান পানু পরিচালিত মনের মাঝে তুমি। এটি বাংলাদেশ-ভারতের যৌথ প্রযোজনায় বাংলাদেশের সবথেকে সফল ছবির মধ্যে অন্যতম।

২০০৪ সালে রাবেয়া খাতুনের উপন্যাস মেঘের পরে মেঘ অবলম্বনে চাষী নজরুল ইসলাম পরিচালিত মুক্তিযু’দ্ধভিত্তিক ছায়াছবি মেঘের পরে মেঘ ছবিতে অভিনয় করেন। এছাড়া কাজী নজরুল ইসলামের গল্প রাক্ষুসী নিয়ে নির্মিত চলচ্চিত্র রাক্ষুসীতে ও অন্যতম কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করেছেন। ২০০৫ সালে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের শা’স্তি গল্প অবলম্বনে নির্মিত শা’স্তি চলচ্চিত্র চন্দরা চরিত্রে অভিনয় করেন।

২০০৬ সালে রবীন্দ্রনাথের শুভাসিনী গল্প অবলম্বনে নির্মিত সুভা চলচ্চিত্রে তিনি নাম ভূমিকায় একজন বাক প্রতিব’ন্ধী চরিত্রে অভিনয় করেন। একই বছর তার অন্যতম বাণিজ্যিক সফল ছায়াছবি হৃদয়ের কথা মুক্তি পায় এবং এই চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য তারকা জরিপে শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র অভিনয়শিল্পী (না’রী) বিভাগে মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার অর্জন করেন।

২০০৭ সালে তিনি ধোকা চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য সমালোচক শাখায় শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র অভিনয়শিল্পী (না’রী) বিভাগে পুরস্কৃত হন এবং মনের সাথে যু’দ্ধ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য তারকা জরিপে শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র অভিনয়শিল্পী (না’রী) বিভাগে মনোনীত হন।

২০০৮ সালে তার অভিনীত আরেকটি বাণিজ্যিক সফল ছায়াছবি আকাশ ছোঁয়া ভালোবাসা মুক্তি পায়। এই চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার-এর তারকা জরিপ ও সমালোচক শাখায় শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র অভিনয়শিল্পী (না’রী) বিভাগে মনোনীত হন। একই বছর তিনি মান্নার প্রযোজিত শেষ চলচ্চিত্র পিতামাতার আমানত-এ মান্নার বিপরীতে অভিনয় করেন।

২০০৯ সালে ওয়াকিল আহমেদ পরিচালিত কে আমি, মনতাজুর রহমান আকবর পরিচালিত মায়ের চোখ ও স্বা’মী নাম্বার ওয়ান এবং এফ আই মানিক পরিচালিত আমার স্বপ্ন আমার সংসার ছায়াছবিতে অভিনয় করেন। এছাড়া এ বছর তিনি শুভ বিবাহ চলচ্চিত্রে অতিথি চরিত্রে অভিনয় করেন।

২০১০ সালে কাজী হায়াৎ পরিচালিত ওরা আমাকে ভাল হতে দিল না ছায়াছবিতে অভিনয়ের মাধ্যমে প্রথমবারের মত শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন। একই বছর পরাণ যায় জ্বলিয়া রে ছায়াছবির জন্য মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার-এর তারকা জরিপ শাখায় শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র অভিনয়শিল্পী (না’রী) বিভাগে মনোনীত হন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here