সবাই জানেন যে, ব’য়স বৃ’দ্ধির স’ঙ্গে মানুষের যৌ’ন আকাঙ্ক্ষা কমে আসে। কিন্তু কানাডার ইউনিভার্সিটি অব গুয়েলপ-এর বিশেষজ্ঞদের গবে’ষণায় উঠে এসেছে ভিন্ন ফলাফল। তাতে বলা হয়, ব’য়স ৪০-এর কোঠায় পৌঁছলেই যৌ’নজীবনটা হয়ে ওঠে আরো রোমাঞ্চকর।এ গবে’ষণায় কানাডার ২৪০০ জন মানুষের ও’পর জরিপ চা’লানো হয়।

এদের সবার ব’য়স ৪০-৫৯ বছরের মধ্যে। তাদের যৌ’নস্বা’স্থ্য, সু’খের মাত্রা এবং তৃ’প্তি সম্প’র্কে ত’থ্য নেওয়া হয়। তাদের যৌ’ন আচরণ ও উদ্দীপনাও বিবেচনায় আনা হয়।

প্রধান গবেষক এবং সে’ক্সুয়ালিটি অ্যান্ড রিলেশনশিপ রিসার্চার রবিন মিলহাউসেন জানান, মানুষের মনে সাধারণ এক ধারণা কাজ করে যে, ব’য়স বৃ’দ্ধির স’ঙ্গে যৌ’নতা গুরুত্ব হারায়। এটি কম উপভোগ্য হয়ে ওঠে। তা ছাড়া ঘন ঘন করতেও আর ভালো লাগে না।

কিন্তু গবে’ষণায় দেখা গেছে, মধ্যব’য়সের শুরুতেই যৌ’নতা সবচেয়ে বেশি গভীরতা পায়। এতে তৃ’প্তির মাত্রা চূড়ায় পৌঁছে। জরিপে এ ত’থ্যই পাওয়া গেছে। কানাডায় মধ্যব’য়সীরাই তৃ’প্তিকর যৌ’নতা উপভোগ করেন।

দেশটির সে’ক্স ইনফরমেশন অ্যান্ড এডুকেশন কাউন্সিল অব কানাডা (এসআইইসিসিএএন) এবং ট্রোজান নামের এক ক’নডম কম্পানির যৌথ গবে’ষণায় এসব ত’থ্য প্রকাশ পায়। যৌ’ন আকঙ্ক্ষা বা তৃ’প্তি ব’য়সের স’ঙ্গে কমে আসে না।জরিপে দেখা গেছে, এ ব’য়সী মানুষরা তাদের শেষ যৌ’নকর্মকে সবচেয়ে তৃ’প্তিকর বলে উল্লেখ করেছেন। এদের প্রত্যেকেই প্রাথমিক অবস্থায় নিজেদের মধ্যকার আবেগগত সম্প’র্ক নিয়ে সন্তুষ্ট।

জরিপকৃতদের ৬৩ শতাংশই মনে করেন, ব’য়স্করা মনে করেন তারা যৌ’নতায় আরো নতুন নতুন বি’ষয় চেষ্টা করতে পারেন। আরেক ত’থ্যে বলা হয়, ৫৫-৫৯ বছর ব’য়সীদের ২২ শতাংশ পুরু’ষের এবং ২৬ শতাংশ না’রীর লুব্রিকেন্ট ব্যবহারের প্রয়োজন পড়ে।

মিলহাউসেন জানান, সম্প’র্ক এবং যৌ’নতার মধ্যকার তৃ’প্তি একে অপরের স’ঙ্গে জ’ড়িত। এ দুয়ের সমন্বয়েই তৃ্প্তিকর অনুভূতি সর্বোচ্চ পর্যায়ে যায়।

এ ছাড়া বিবা’হিত মানুষের জীবনে যৌ’ন তৃ’প্তি একাকীদের চেয়েও অনেক বেশি থাকে বলে জানানো হয় গবে’ষণায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here