কক্সবাজার টেকনাফের শামলাপুর তল্লা’শি চৌকিতে পু’লিশের গু’লিতে ঘ’টনায় টেকনাফ থা’নার সাবেক ওসি প্রদীপ কুমা’র দাশসহ তিন অ’ভিযু’ক্তকে রি’মান্ডে পেলেও এখনো জি’জ্ঞাসাবাদ শুরু করতে পারেনি র‌্যা’­ব।

মা’মলার আলামত এখনো হাতে না পাওয়া এবং সাক্ষী সিফাত-শিপ্রা দেবনাথের জা’মিনের অ’পেক্ষার কারণে রি’মান্ড কার্যকরে বিলম্ব হচ্ছে।

ইতিমধ্যে দুজনই জা’মিনে মুক্ত হয়েছেন। এবার দুই সাক্ষীকে জি’জ্ঞাসাবাদ শেষে অ’ভিযু’ক্ত তিনজনকে রি’মান্ডে নেয়া হতে পারে বলে জানিয়েছে র‌্যা’­ব।

আ’দালতের নির্দেশনা মতে, চার আ’সামির জে’লগেটে জি’জ্ঞাসাবাদ শেষ হলেও মূ’ল অ’ভিযু’ক্ত তিনজনকে গত

চার দিনেও রি’মান্ডে নেয়া যায়নি। রি’মান্ডপ্রা’প্তরা হলেন- মা’মলার এক নম্বর আ’সামি বাহারছড়া পু’লিশ ত’দন্তকেন্দ্রের সাবেক পরিদর্শক লিয়াকত আলী,

দুই নম্বর আ’সামি টেকনাফ থা’না পু’লিশের সাবেক ওসি প্রদীপ কুমা’র দাশ ও তিন নম্বর আ’সামি পু’লিশের সাবেক

উপপরিদর্শক (এসআই) নন্দ দুলাল রক্ষিত। বৃহস্পতিবার তাদের প্রত্যেকের সাত দিন করে রি’মান্ড মঞ্জুর করে আ’দালত।

পাশাপাশি পু’লিশের সাবেক সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) লিটন মিয়া, কনস্টেবল সাফানুর করিম, কামাল হোসেন ও আব্দুল্লাহ আল মামুনকে

জে’লগেটে জি’জ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দেন বিচারক। সেই জি’জ্ঞাসাবাদ আজ সোমবার শেষ হয়েছে। এদিকে এই চার অ’ভিযু’ক্তকে নতুন করে দশ দিনের রি’মান্ড চেয়ে আ’দালতে আবেদন করেছে র‌্যা’­ব।

র‌্যা’­ব জানায়, মেজর সিনহার বোনের করা মা’মলায় সাতজনকে অ’ভিযু’ক্ত করা হয়। মা’মলায় অন্যতম সাক্ষী হিসেবে

সিনহার স’ঙ্গী সিফাত ও শিপ্রাকে দেখানো হয়। ঘ’টনার পর পু’লিশের মা’মলায় তাদেরকে গ্রে’প্তার দেখিয়ে জে’লহাজতে পাঠানো হয়। গতকাল এবং আজ দুজন সাক্ষীর জা’মিন হওয়ায় রি’মান্ড আবেদন দ্রু’তই জি’জ্ঞাসাবাদ শুরু হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here